(১) আল্লাহর কাছে আশ্রয় প্রার্থনা করবে (‘আঊযু বিল্লা-হ’ বলবে)।[1]

(২) যে সন্দেহে নিপতিত হয়েছে তা দূর করবে।[2]

(৩) বলবে,

«آمَنْتُ بِاللَّهِ وَرُسُلِهِ».

(মানতু বিল্লাহি ওয়া রুসুলিহি)

“আমি আল্লাহ ও তাঁর রাসূলগণের ওপর ঈমান আনলাম।”[3]

(৪) আল্লাহ তা‘আলার নিম্নোক্ত বাণী পড়বে,

«﴿هُوَ الْأوَّلُ وَالْآخِرُ وَالظّاهِرُ وَالْباطِنُ وَهُوَ بِكُلِّ شَيْءٍ عَلِيمٌ﴾».

(হুয়াল আউওয়ালু ওয়াল আ-খিরু ওয়ায্যা-হিরু ওয়াল-বা-ত্বিনু ওয়া হুয়া বিকুল্লি শাই’ইন ‘আলীম)।

“তিনিই সর্বপ্রথম, তিনিই সর্বশেষ, তিনিই সকলের উপরে, তিনিই সকলের নিকটে এবং তিনি সব কিছু সম্পর্কে সর্বজ্ঞ।”[4]

তথ্য সূত্র :


[1] বুখারী, (ফাতহুল বারীসহ) ৬/৩৩৬, নং ৩২৭৬; মুসলিম ১/১২০, নং ১৩৪।

[2] বুখারী, (ফাতহুল বারীসহ) ৬/৩৩৬, নং ৩২৭৬; মুসলিম ১/১২০, ১৩৪।

[3] মুসলিম ১/১১৯-১২০, নং ১৩৪।

[4] সূরা হাদীদ-৩, আবূ দাউদ ৪/৩২৯, নং ৫১১০। আর শাইখ আলবানী সহীহ আবি দাউদ ৩/৯৬২ একে হাসান বলেছেন।