কুরআন ও সুন্নাহের ওপর আরোপিত বিভিন্ন প্রশ্নের জাওয়াব

অনুবাদক: জাকেরুল্লাহ আবুল খায়ের।। সম্পাদক: ড. আবু বকর মুহাম্মাদ যাকারিয়া

আল্লাহর বাণী:  إِنَّمَا ٱلۡمَسِيحُ عِيسَى ٱبۡنُ مَرۡيَمَ رَسُولُ ٱللَّهِ“মারইয়ামের পুত্র মাসীহ ঈসা কেবলমাত্র আল্লাহর রাসূল” [সূরা আন-নিসা, আয়াত: ১৭১]

প্রশ্ন: আল্লাহ তা‘আলা কুরআনে কারীমে বলেন, ﴿إِنَّمَا ٱلۡمَسِيحُ عِيسَى ٱبۡنُ مَرۡيَمَ رَسُولُ ٱللَّهِ وَكَلِمَتُهُۥٓ أَلۡقَىٰهَآ إِلَىٰ مَرۡيَمَ وَرُوحٞ مِّنۡهُۖ فَ‍َٔامِنُواْ بِٱللَّهِ وَرُسُلِهِۦۖ وَلَا تَقُولُواْ ثَلَٰثَةٌۚ ٱنتَهُواْ خَيۡرٗا لَّكُمۡۚ إِنَّمَا ٱللَّهُ إِلَٰهٞ وَٰحِدٞۖ سُبۡحَٰنَهُۥٓ أَن يَكُونَ لَهُۥ وَلَدٞۘ لَّهُۥ مَا فِي ٱلسَّمَٰوَٰتِ وَمَا فِي ٱلۡأَرۡضِۗ وَكَفَىٰ بِٱللَّهِ وَكِيلٗا ١٧١﴾ [النساء : ١٧١] “মারইয়ামের পুত্র মাসীহ ঈসা কেবলমাত্র আল্লাহর রাসূল ও তাঁর কালিমা, যা তিনি প্রেরণ করেছিলেন মারইয়ামের প্রতি এবং তাঁর পক্ষ থেকে রূহ। সুতরাং, তোমরা আল্লাহ ও তাঁর রাসূলগণের প্রতি ঈমান আন এবং বলো না, ‘তিন’। তোমরা বিরত হও, তা তোমাদের জন্য উত্তম। আল্লাহই কেবল এক ইলাহ, তিনি পবিত্র মহান এ থেকে যে, তাঁর কোন সন্তান হবে। আসমানসমূহে যা রয়েছে এবং যা রয়েছে জমিনে, তা আল্লাহরই। আর কর্মবিধায়ক হিসেবে আল্লাহই যথেষ্ট।” [সূরা আন-নিসা, আয়াত: ১৭১] কতক খৃষ্টান বলে আমরা যে ত্রিত্ববাদে বিশ্বাস করি এ আয়াতটি তার সমর্থন করে। অর্থাৎ ঈসা আলাইহিস সালাম তিন জনের (পিতা, পুত্র, পবিত্র আত্মা) একজন। -আল্লাহ তা‘আলা এ অপবাদ থেকে তোমাদের হিফাযত করুন- এ প্রশ্নের সঠিক উত্তর কি?।

উত্তর: এ দাবি সম্পূর্ণ বাতিল। আয়াতটি তাদের দাবি সমর্থন করে না এবং বাহ্যিক অর্থের মধ্যে তাদের দাবির প্রতি কোন ইঙ্গিতও পাওয়া যায় না। কারণ, আল্লাহ তা‘আলা আয়াতে প্রথমে নাম নিয়েছেন তারপর তার নাম বদল হিসেবে তার আসল নাম অর্থাৎ ঈসা উল্লেখ করেছেন। তারপর তাকে তার মায়ের দিকে সম্বোধন করা হয়েছে যেমনি-ভাবে সন্তানকে তার পিতার দিক সম্বোধন করা হয়ে থাকে। তারপর তাকে রাসূল বলে আখ্যায়িত করা হয়েছে। অর্থাৎ তিনি আল্লাহর পক্ষ থেকে বনী ইসলাঈলদের নিকট প্রেরিত। তারপর তারপর ওপর আতফ করে বলা হয়েছে যে, তিনি আল্লাহর কালিমা। অর্থাৎ আদম আলাইহিস সালামকে যেভাবে মাতা-পিতা ছাড়া সৃষ্টি করা হয়েছে তাকেও পিতা ছাড়া কালিমায়ে كن দ্বারা সৃষ্টি করা হয়েছে। তারপর তাকে আল্লাহ তা‘আলা সৃষ্ট রুহসমূহের একটি রুহ বলে আখ্যায়িত করা হয়েছে। সুতরাং, আয়াতে ঈসা আলাইহিস সালামের তিনটি নাম ও তিনটি সিফাত রয়েছে। ঈসা ইবন মারইয়াম বলে নাম রাখা দ্বারা তাকে আল্লাহর ছেলে বলা বাতিল গণ হলো। কারণ, তাকে তার মায়ের দিক সম্বোধন করা হয়েছে। তারপর বলা হয়েছে তিনি অন্যান্য রাসূলদের মতো একজন রাসূল, যারা শরী‘আতের দায়িত্ব বহন করেছেন এবং আল্লাহর দিকে মানুষকে দাও‘আত দেওয়ার জন্য প্রেরণ করেছেন। তারপর বলা হয়েছে তিনি আল্লাহ কালিমা যে কালিমা নিয়ে আল্লাহ ফিরিশতাকে পাঠিয়েছেন। ফিরিশতা তার জামার হাতায় ফুঁ দেয়াতে তা তার লজ্জা-স্থানে পৌঁছে যায় এবং তাতে তিনি গর্ভবতী হয়ে পড়েন। তারপর বলা হয়েছে, তিনি তার থেকে রুহ। এখানে আল্লাহর দিকে সম্বোধনটি সম্মানজনক সম্বোধন যেমনটি সম্মানার্থে বলা হয়ে থাকে— আল্লাহর ঘর, আল্লাহর উষ্ঠি। সুতরাং তিনি রুহ যা আল্লাহরই মাখলুক। আর আল্লাহ তা‘আলা বাণী: ﴿وَأَيَّدۡنَٰهُ بِرُوحِ ٱلۡقُدُسِۗ ٨٧﴾ [البقرة: ٨٧] “আর তাকে শক্তিশালী করেছি ‘পবিত্র আত্মা’র[1] মাধ্যমে।”   [সূরা আল-বাকারাহ, আয়াত: ৮৭]-তে পবিত্র আত্মা দ্বারা উদ্দেশ্য জিবরীল আলাইহিস সালাম। তিনি অহীর দায়িত্বপ্রাপ্ত ফিরিশতা, যিনি নবীদের ওপর অহী নাযিল করেন। তিনি অন্যান্য ফিরিশতাদের মতোই আল্লাহর সৃষ্টি। আল্লাহই ভালো জানেন। শাইখ আব্দুল্লাহ বিন জাবরীন।

[1] পবিত্র আত্মা অর্থ জিবরীল (আলাইহিস সালাম)

ব্লগ সাইটটি যদি আপনার মনের কোথাও একটুও যায়গা করে নেয় বা ভালো লেগে থাকে। তাহলে আপনিও ব্লগের কার্যক্রম কে সামনের দিকে এগিয়ে নিতে আপনার লেখণী পাঠাতে পারেন।আপনার লেখনী পাঠিয়ে আমাদের ফেচবুক পেজের ম্যাসেঞ্জারে গিয়ে দয়াকরে নক করুন।
নিচে মন্তব্যের ঘরে আপনাদের মতামত জানান। ভালো লাগবে আপনাদের অভিপ্রায়গুলো জানতে পারলে। আর লেখা সম্পর্কিত কোন জিজ্ঞাসার উত্তর পেতে অবশ্যই “ওয়ার্ডপ্রেস থেকে কমেন্ট করুন”।

আপনার মন্তব্য লিখুন

দয়া করে আপনার মন্তব্য লিখুন !
দয়া করে এখানে আপনার নাম লিখুন