কুরআন ও সুন্নাহের ওপর আরোপিত বিভিন্ন প্রশ্নের জাওয়াব

অনুবাদক: জাকেরুল্লাহ আবুল খায়ের।। সম্পাদক: ড. আবু বকর মুহাম্মাদ যাকারিয়া

রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের বাণী: لا تقوم الساعة حتى يعم الإسلام الأرض “ইসলামের পরিপূর্ণ প্রতিষ্ঠা ছাড়া কিয়ামত হবে না।” রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের অপর বাণী:  إنها لا تقوم ويبقى من يقول لا إله الا الله في الأرض “যতক্ষণ পর্যন্ত জমিন লা-ইলাহা ইল্লাল্লাহু বলার মত একজন লোকও অবশিষ্ট থাকবে ততক্ষণ পর্যন্ত কিয়ামত কায়েম হবে না।”

প্রশ্ন: আমরা প্রায় এ কথা শুনে থাকি যে, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, ইসলামের পরিপূর্ণ প্রতিষ্ঠা ছাড়া কিয়ামত হবে না। ‌অপরদিকে আমরা অন্যদের কাছে শুনতে পাই যে, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, জমিন জমিনে লা-ইলাহা ইল্লাল্লাহু বলার মত একজন লোকও অবশিষ্ট থাকতে কিয়ামত কায়েম হবে না। উভয় বাণীর মধ্যে কিভাকে বিরোধ নিষ্পত্তি করব?

উত্তর: উভয় বাণীই বিশুদ্ধ। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম থেকে বর্ণিত বিশুদ্ধ হাদীস দ্বারা প্রমাণিত, তিনি বলেন, ঈসা ইবন মারিয়ামের আগমন ছাড়া কিয়ামত সংঘটিত হবে না। তিনি এসে দাজ্জালকে হত্যা করবেন, শুকর নিধন করবেন, সুলিক ভেঙ্গে দেবেন, সম্পদকে ব্যাপক করবেন এবং ট্যেক্স তুলে দেবেন। তিনি ইসলাম ছাড়া অন্য কিছু তিনি গ্রহণ করবেন না অন্যথায় যারা ইসলাম গ্রহণ করবে তাদের সাথে যুদ্ধ। তার আমলে আল্লাহ তা‘আলা ইসলাম ছাড়া সব ধর্মকে ধ্বংস করে দেবেন। তখন জমিনে সেজদা কেবল আল্লাহর জন্য হবে।

এ কথা স্পষ্ট যে, ঈসা আলাইহিস সালামের যুগে ইসলাম সারা দুনিয়াতে বিজয়ী হবে এবং ইসলাম ছাড়া আর কোন দীন পৃথিবীতে অবশিষ্ট থাকবে না। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম থেকে অসংখ্য হাদীস এ মর্মে বর্ণিত যে, কিয়ামত কেবল নিকৃষ্ট মানুষের ওপর কায়েম হবে। ঈসা আলাইহিস সালাম এ মৃত্যুর পর যখন সূর্য পশ্চিম দিক থেকে উদয় হবে তখন আল্লাহ তা‘আলা এক ধরনের পবিত্র বাতাস প্রেরণ করবেন। এ বাতাস প্রতিটি মু’মিন বান্দা-বান্দির জীবনকে কবজ করে নিয় যাবে। জমিন খারাপ মানুষ ছাড়া আর কেউ অবশিষ্ট থাকবে না তখন তাদের ওপর কিয়মাত কায়েম হবে। আল্লাহ তা‘আলাই তাওফীক দাতা

শাইখ আব্দুল আযীয বিন বায রহ.

ব্লগ সাইটটি যদি আপনার মনের কোথাও একটুও যায়গা করে নেয় বা ভালো লেগে থাকে। তাহলে আপনিও ব্লগের কার্যক্রম কে সামনের দিকে এগিয়ে নিতে আপনার লেখণী পাঠাতে পারেন।আপনার লেখনী পাঠিয়ে আমাদের ফেচবুক পেজের ম্যাসেঞ্জারে গিয়ে দয়াকরে নক করুন।
নিচে মন্তব্যের ঘরে আপনাদের মতামত জানান। ভালো লাগবে আপনাদের অভিপ্রায়গুলো জানতে পারলে। আর লেখা সম্পর্কিত কোন জিজ্ঞাসার উত্তর পেতে অবশ্যই “ওয়ার্ডপ্রেস থেকে কমেন্ট করুন”।

আপনার মন্তব্য লিখুন

দয়া করে আপনার মন্তব্য লিখুন !
দয়া করে এখানে আপনার নাম লিখুন