কুরআন ও সুন্নাহের ওপর আরোপিত বিভিন্ন প্রশ্নের জাওয়াব

অনুবাদক: জাকেরুল্লাহ আবুল খায়ের।। সম্পাদক: ড. আবু বকর মুহাম্মাদ যাকারিয়া

আল্লাহ তা‘আলা বাণী: ﴿إِنِّي جَاعِلٞ فِي ٱلۡأَرۡضِ خَلِيفَةٗۖ ٣٠﴾ [البقرة: ٣٠] “নিশ্চয় আমি জমিনে একজন খলীফা সৃষ্টি করছি।” [সূরা আল-বাকারাহ, আয়াত: ৩০]

প্রশ্ন: প্রশ্নকারী বলেন, আল্লাহ তা‘আলা বলেন, ﴿وَإِذۡ قَالَ رَبُّكَ لِلۡمَلَٰٓئِكَةِ إِنِّي جَاعِلٞ فِي ٱلۡأَرۡضِ خَلِيفَةٗۖ قَالُوٓاْ أَتَجۡعَلُ فِيهَا مَن يُفۡسِدُ فِيهَا وَيَسۡفِكُ ٱلدِّمَآءَ وَنَحۡنُ نُسَبِّحُ بِحَمۡدِكَ وَنُقَدِّسُ لَكَۖ قَالَ إِنِّيٓ أَعۡلَمُ مَا لَا تَعۡلَمُونَ ٣٠﴾ [البقرة: ٣٠] “আর স্মরণ কর, যখন তোমার রব ফেরেশতাদেরকে বললেন, ‘নিশ্চয় আমি জমিনে একজন খলীফা সৃষ্টি করছি’, তারা বলল, ‘আপনি কি সেখানে এমন কাউকে সৃষ্টি করবেন, যে তাতে ফাসাদ করবে এবং রক্ত প্রবাহিত করবে? আর আমরা তো আপনার প্রশংসায় তাসবীহ পাঠ করছি এবং আপনার পবিত্রতা ঘোষণা করছি। তিনি বললেন, নিশ্চয় আমি জানি যা তোমরা জান না।” [সূরা বাকারাহ, আয়াত: ৩০] এ আয়াতের অর্থ এটা কি আল্লাহ তা‘আলা আদম আলাইহিস সালামকে সৃষ্টি করার পূর্বে মানব সৃষ্টি করেছেন? অন্যথায় মানুষ জমিনে খুন-খারাবী করবে এবং ফিতনা-ফ্যাসাদ করবে এ কথা ফিরিশতারা কীভাবে জানল? জমিনে খলীফা (প্রতিনিধি) সৃষ্টি করা দ্বারা আল্লাহ তা‘লা উদ্দেশ্য কি? তারা কার প্রতিনিধি?

উত্তর: আয়াত দ্বার প্রতীয়মান যে, মানব অর্থাৎ আদম আলাইহিস সালামকে আল্লাহ তা‘আলা জমিনে তার পূর্বে কোন ফ্যাসাদ কারী বা অন্যায়কারীর খলীফা বা প্রতিনিধি বানিয়েছেন। ফিরিশতাদের কথা দ্বারা প্রমাণ হয়, যে জমিনে এমন এক সম্প্রদায় ছিল যারা ফিতনা ফ্যাসাদ করেছিল। ফলে তারা জমিনে যা সংঘটিত হয়েছিল তাই তুলে ধরছিল। অথবা যে কোন উপায়ে তারা বিষয়টি অবগত হয়েছিল। তাই তারা যা বলার বলছিল। আল্লাহ তা‘আলা তাদের জানিয়ে দেন যে, ফিরিশতারা যা জানে না আল্লাহ তা‘আলা তা জানেন— এই প্রতিনিধিরা আল্লাহর শরী‘আত ও আল্লাহর দীন অনুযায়ী জমিনে বিচার-ফায়সালা করবেন, তাওহীদের প্রতি মানুষকে দাও‘আত দেবেন, দীনকে কেবল আল্লাহর জন্যই পালন করবেন এবং তারা আল্লাহর প্রতি ঈমান আনবেন।

অনুরূপভাবে তাদের সন্তানদের মাঝে নবী ও রাসূল হবেন। নেককার লোক, আলেম-উলামা, মুখলিস বান্দাগণ ইত্যাদির আবির্ভাব হবেন যারা কেবল আল্লাহর ইবাদত করবে, তার শরী‘আত অনুযায়ী বিচার-ফায়সালা করবে, তিনি যা করতে বলেছেন তা করবেন এবং যা করতে নিষেধ করেছেন তা থেকে বিরত থাকবেন।

নবী, রাসূল, আলেম-উলামা ও মুখলিস বান্দাদের মধ্যে দুনিয়ার শুরু থেকে আজ পর্যন্ত এমনই ধারাবাহিকতা সংঘটিত হয়ে আসছে। আল্লাহর নির্দেশ তাদের নিকট প্রাধান্য পেয়েছে। পরবর্তীতে ফিরিশতারা এ মহান সংবাদ জানতে পেরেছে। আদম আলাইহিস সালামের পূর্বের মাখলুক সম্পর্কে কেউ কেউ বলেছেন তারা এক শ্রেণির মানুষ এবং প্রতিনিধি যাদের জ্বীন বলা হয়ে থাকে।

মোট কথা, আদম আলাইহিস সালাম আল্লাহর জমিনে তার পূর্বে অতিবাহিত কোন সম্প্রদায়ের প্রতিনিধি যাদের বিষয়ে একমাত্র আল্লাহ ছাড়া আর কেউ জানেন না। আদম আলাইহিস সালামের পূর্বে কারা ছিল তাদের গুনাগুণ ও বৈশিষ্ট্য বিষয় অকাট্য কোন প্রমাণ নেই। শুধু এ টুকু বলা যায় যে, আদম আলাইহিস সালামকে তার পূর্বে অতিবাহিত কোন এক সম্প্রদায়ে খলীফা বা প্রতিনিধি করা হয়েছে। ফলে তিনি হককে বিজয়ী করা, আল্লাহর বিধানকে তুলে ধরা, আল্লাহর সন্তুষ্টি ও নৈকট্য লাভের উপায়গুলো বর্ণনা করার এবং মন্দ ও ফিতনা-ফ্যাসাদ থেকে মানুষকে বিরত রাখায় তাদের প্রতিনিধিত্ব করবেন। তারপর তার সন্তানদের থেকে যে সব নবী রাসূল, সালোক, নেককার জমিনে আগমন করবে তারাও এ মহান গুরু দায়িত্ব পালন করবেন। তারাও মানুষকে হকের দাও‘আত দেবেন, সত্যকে স্পষ্ট করবেন এবং মানুষকে আল্লাহর দীনের প্রতি পথ দেখাবেন। তারাও আল্লাহর বিধান, একত্ববাদ এবং তার শরী‘আতকে বাস্তবায়নের মাধ্যমে জমিনকে আবাদ করবেন। আর যারা আল্লাহর দীনের বিরোধিতা করবে তাদের প্রতিহত করবেন। আল্লাহ তা‘আলাই তাওফীক দাতা।

শাইখ আব্দুল আযীয বিন বায রহ.

ব্লগ সাইটটি যদি আপনার মনের কোথাও একটুও যায়গা করে নেয় বা ভালো লেগে থাকে। তাহলে আপনিও ব্লগের কার্যক্রম কে সামনের দিকে এগিয়ে নিতে আপনার লেখণী পাঠাতে পারেন।আপনার লেখনী পাঠিয়ে আমাদের ফেচবুক পেজের ম্যাসেঞ্জারে গিয়ে দয়াকরে নক করুন।
নিচে মন্তব্যের ঘরে আপনাদের মতামত জানান। ভালো লাগবে আপনাদের অভিপ্রায়গুলো জানতে পারলে। আর লেখা সম্পর্কিত কোন জিজ্ঞাসার উত্তর পেতে অবশ্যই “ওয়ার্ডপ্রেস থেকে কমেন্ট করুন”।

আপনার মন্তব্য লিখুন

দয়া করে আপনার মন্তব্য লিখুন !
দয়া করে এখানে আপনার নাম লিখুন