সংক্রমণ ব্যধি সম্পর্কে ইসলামের বিধান

 কুরআন ও সুন্নাহের ওপর আরোপিত বিভিন্ন প্রশ্নের জাওয়াব

অনুবাদক: জাকেরুল্লাহ আবুল খায়ের।। সম্পাদক: ড. আবু বকর মুহাম্মাদ যাকারিয়া

রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের বাণী:  لَا عَدْوَى وَلَا طِيَرَةَ “ইসলামে কোন সংক্রমণ নেই এবং পাখি উড়িয়ে ভাগ্য নির্ধারণ করা নেই” রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের অপর বাণী:  وَفِرَّ مِنْ الْمَجْذُومِ كَمَا تَفِرُّ مِنْ الْأَسَدِ “তুমি কুষ্ঠ রোগ থেকে এমনভাবে পলায়ন কর যেমন তুমি বাঘ থেকে পলায়ন কর

প্রশ্ন: নিম্ন বর্ণিত দু’টি হাদীস—َ لَا عَدْوَى وَلَا طِيَرَةَ “ইসলামে কোন সংক্রমণ নেই এবং পাখি উড়িয়ে ভাগ্য নির্ধারণ করা নেই।” এবং   وَفِرَّ مِنْ الْمَجْذُومِ كَمَا تَفِرُّ مِنْ الْأَسَدِ “তুমি কুষ্ঠ রোগ থেকে পলায়ন কর যেমন তুমি বাঘ থেকে পলায়ন কর” এর মাঝে কীভাবে বিরোধ নিরসন করব?

উত্তর: আহলে ইলমদের নিকট উভয় হাদীসের মধ্যে কোন বিরোধ নেই। উভয় হাদীসই রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের বাণী। তিনি বলেন, « لاَ عَدْوَى وَلاَ طِيَرَةَ وَلاَ صَفَرَ وَلاَ هَامَةَ » এ হাদীস দ্বারা জাহিলিয়্যাতের যুগের কু-সংস্কারকে না করা হয়েছে। তারা এ কথা বিশ্বাস করত যে, কিছু রোগ এমন রয়েছে যেগুলো নিজ ক্ষমতায় একজন থেকে অপর জনের দেহে বিস্তার করতে পারে এবং রোগীর সাথে উঠবস করলে তাতে সেও আক্রান্ত হবে। এ বিশ্বাস ছিল ভ্রান্ত ও কু-সংস্কার। মূলত: মানুষের রোগ-ব্যাধি আল্লাহর কুদরত ও ইচ্ছায় হয়ে থাকে। বাস্তবতা হলো অনেক সময় দেখা যায় একজন সুস্থ ব্যক্তি রোগীর সাথে উঠবস করার পরও সে আক্রান্ত হয় না। এ কারণে খুজলি পাঁচড়ায় আক্রান্ত উটের সাথে সুস্থ উট মেশা বিষয়ে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি বলেন, فمن أجرب الأول “প্রথমটির মধ্যে কোথা থেকে সংক্রমণ ঘটল।”[1] আর রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের বাণী— “তুমি কুষ্ঠ রোগ থেকে এমনভাবে পলায়ন কর যেমন তুমি বাঘ থেকে পলায়ন কর।”[2] অপর হাদীস রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের বাণী— «لاَ يُورِدُ مُمْرِضٌ عَلَى مُصِحٍّ ». “অসুস্থ ব্যক্তি যেন সুস্থ ব্যক্তিদের নিকট গমন না করে।”[3] এর উত্তর হলো, রোগের মধ্যে সংক্রমণের ক্ষমতা আছে এ কথা বিশ্বাস না করা। কিন্তু একজন সুস্থ ব্যক্তির জন্য যে সব কারণগুলো দ্বারা রোগমুক্ত থাকা যায় সেগুলো গ্রহণ করা বৈধ। যেমন—আল্লাহর ইচ্ছায় রোগটি অসুস্থ ব্যক্তি থেকে সুস্থ ব্যক্তির দেহে সংক্রমণ হতে পারে এ আশঙ্কায় আক্রান্ত রোগী থেকে দূরে থাকা। অনুরূপভাবে খারাবীর কারণসমূহ থেকে সতর্ক থাকা ও শয়তানের কু-মন্ত্রণা থেকে নিরাপদ থাকার লক্ষে সুস্থ উটগুলোকে খুজলি পাঁচড়া বা সংক্রমণ ব্যাধিতে আক্রান্ত উটগুলোর নিকট নিয়ে না যাওয়া এবং দূরে রাখা। অন্যথায় শয়তান মানুষকে এ বলে ধোঁকা দিতে পারে যে, নিশ্চয় সে সংক্রমণের কারণে আক্রান্ত হয়েছে। আল্লাহর ইচ্ছা বা কুদরতের কারণে নয়। আল্লাহ তা‘আলাই তাওফীক দাতা।

শাইখ আব্দুল আযীয বিন বায রহ.

[1] ইবন মাযাহ, হাদীস নং ৩৫৪০

[2] সহীহ মুসলিম, হাদীস নং ৫৯২২

[3] সহীহ মুসলিম, হাদীস নং ৫৯২২

ব্লগ সাইটটি যদি আপনার মনের কোথাও একটুও যায়গা করে নেয় বা ভালো লেগে থাকে। তাহলে আপনিও ব্লগের কার্যক্রম কে সামনের দিকে এগিয়ে নিতে আপনার লেখণী পাঠাতে পারেন।আপনার লেখনী পাঠিয়ে আমাদের ফেচবুক পেজের ম্যাসেঞ্জারে গিয়ে দয়াকরে নক করুন।
নিচে মন্তব্যের ঘরে আপনাদের মতামত জানান। ভালো লাগবে আপনাদের অভিপ্রায়গুলো জানতে পারলে। আর লেখা সম্পর্কিত কোন জিজ্ঞাসার উত্তর পেতে অবশ্যই “ওয়ার্ডপ্রেস থেকে কমেন্ট করুন”।

আপনার মন্তব্য লিখুন

দয়া করে আপনার মন্তব্য লিখুন !
দয়া করে এখানে আপনার নাম লিখুন