কুরআন ও সুন্নাহের ওপর আরোপিত বিভিন্ন প্রশ্নের জাওয়াব

অনুবাদক: জাকেরুল্লাহ আবুল খায়ের।। সম্পাদক: ড. আবু বকর মুহাম্মাদ যাকারিয়া

প্রশ্ন: প্রশ্নকারী বলেন, সূরা আল-কাহ্‌ফে মূসা আলাইহিস সালামের সাথে একজন নেককার লোকের ঘটনায় লোকটি বলেন—﴿أَمَّا ٱلسَّفِينَةُ فَكَانَتۡ لِمَسَٰكِينَ يَعۡمَلُونَ فِي ٱلۡبَحۡرِ فَأَرَدتُّ أَنۡ أَعِيبَهَا وَكَانَ وَرَآءَهُم مَّلِكٞ يَأۡخُذُ كُلَّ سَفِينَةٍ غَصۡبٗا ٧٩ وَأَمَّا ٱلۡغُلَٰمُ فَكَانَ أَبَوَاهُ مُؤۡمِنَيۡنِ فَخَشِينَآ أَن يُرۡهِقَهُمَا طُغۡيَٰنٗا وَكُفۡرٗا ٨٠ فَأَرَدۡنَآ أَن يُبۡدِلَهُمَا رَبُّهُمَا خَيۡرٗا مِّنۡهُ زَكَوٰةٗ وَأَقۡرَبَ رُحۡمٗا ٨١ وَأَمَّا ٱلۡجِدَارُ فَكَانَ لِغُلَٰمَيۡنِ يَتِيمَيۡنِ فِي ٱلۡمَدِينَةِ وَكَانَ تَحۡتَهُۥ كَنزٞ لَّهُمَا وَكَانَ أَبُوهُمَا صَٰلِحٗا فَأَرَادَ رَبُّكَ أَن يَبۡلُغَآ أَشُدَّهُمَا وَيَسۡتَخۡرِجَا كَنزَهُمَا رَحۡمَةٗ مِّن رَّبِّكَۚ وَمَا فَعَلۡتُهُۥ عَنۡ أَمۡرِيۚ ذَٰلِكَ تَأۡوِيلُ مَا لَمۡ تَسۡطِع عَّلَيۡهِ صَبۡرٗا ٨٢﴾ [الكهف: ٧٩،  ٨٢] “নৌকাটির বিষয় হল, তা ছিল কিছু দরিদ্র লোকের যারা সমুদ্রে কাজ করত। আমি নৌকাটিকে ত্রুটিযুক্ত করতে চেয়েছি কারণ তাদের পেছনে ছিল এক রাজা, যে নৌকাগুলো জোরপূর্বক ছিনিয়ে নিচ্ছিল’। ‘আর বালকটির বিষয় হল, তার পিতা-মাতা ছিল মুমিন। অতঃপর আমি আশংকা[1] করলাম যে, সে সীমালংঘন ও কুফরী দ্বারা তাদেরকে অতিষ্ঠ করে তুলবে’। ‘তাই আমি চাইলাম, তাদের রব তাদেরকে তার পরিবর্তে এমন সন্তান দান করবেন, যে হবে তার চেয়ে পবিত্রতায় উত্তম এবং দয়ামায়ায় অধিক ঘনিষ্ঠ। ‘আর প্রাচীরটির বিষয় হল, তা ছিল শহরের দু’জন ইয়াতীম বালকের এবং তার নিচে ছিল তাদের গুপ্তধন। আর তাদের পিতা ছিল সৎকর্মপরায়ণ। তাই আপনার রব চাইলেন যে, তারা দু’জন প্রাপ্তবয়স্ক হয়ে তাদের গুপ্তধন বের করে নেবে। এ সবই আপনার রবের রহমত স্বরূপ। আমি নিজ থেকে তা করিনি। এ হলো সে বিষয়ের ব্যাখ্যা, যে সম্পর্কে আপনি ধৈর্য ধারণ করতে পারেননি।” [সূরা আল-কাহাফ, আয়াত: ৭৯, ৮২]

 আয়াতে দেখা যাচ্ছে, সে নৌকাটির নিকটে গিয়ে বলল,فَأَرَدتُّ أَنۡ أَعِيبَهَا  “আমি নৌকাটিকে ত্রুটিযুক্ত করতে চেয়েছি” আর মু’মিন দুই মাতা-পিতার উল্লেখের সময় বলল,فَأَرَدۡنَآ أَن يُبۡدِلَهُمَا رَبُّهُمَا  ‘‘তাই আমি চাইলাম, তাদের রব তাদেরকে তার পরিবর্তে এমন সন্তান দান করবেন, যে হবে তার চেয়ে পবিত্রতায় উত্তম এবং দয়ামায়ায় অধিক ঘনিষ্ঠ।” এবং প্রাসাদের মালিক দুই ইয়াতীমের আলোচনার সময় বলল, فَأَرَادَ رَبُّكَ ‘‘তাই আপনার রব চাইলেন” এ তিনটি অভিব্যক্তির মধ্যে পার্থক্য কি? আল্লাহর ইচ্ছার সাথে এ নেককার লোকটিরও কি ইচ্ছা রয়েছে?

উত্তর: সহীহ কথা হলো, লোকটি মূসা আলাইহিস সালামের সাথী খিযির আলাইহিস সালাম। বিশুদ্ধ মতানুসারে তিনি কেবল একজন নেককার লোক নয় তিনি একজন নবী। এ কারণেই তিনি বলেন,وَمَا فَعَلۡتُهُۥ عَنۡ أَمۡرِيۚ  ‘‘আমি নিজ থেকে তা করিনি” অর্থাৎ, বরং আল্লাহর নির্দেশেই আমি কাজটি করি। একই ঘটনায় বিশুদ্ধ সনদে বর্ণিত যে, তিনি মূসা আলাইহিস সালামকে বলেন, আল্লাহ তা’আলা আপনাকে এমন ইলম শিক্ষা দিয়েছেন যা আপনি জানেন তা আমি জানি না। আর আল্লাহ আমাকে এমন ইলম শিক্ষা দিয়েছেন যা আমি জানি তবে আপনি জানেন না। এ কথা দ্বারা প্রমাণিত হয়, নিশ্চয় তিনি একজন নবী ছিলেন। এ কারণেই আল্লাহ তা‘আলা বলেন, فَأَرَادَ رَبُّكَ أَن يَبۡلُغَآ أَشُدَّهُمَا “তাই আপনার রব চাইলেন যে, তারা দু’জন প্রাপ্তবয়স্ক হয়ে তাদের গুপ্তধন বের করে নেবে।” আর একজন রাসূল যেহেতু তার কাছে অহী আসে, সে অবশ্যই আল্লাহর ইচ্ছা সম্পর্কে অবগত থাকেন।

আর নৌকার কাহিনীতে বিষয়টি সে তার নিজের দিকে সম্বোধন করে বলেন, فَأَرَدتُّ أَنۡ أَعِيبَهَا “আমি নৌকাটিকে ত্রুটিযুক্ত করতে চেয়েছি।” এর কারণ—আল্লাহই ভালো জানেন—ভালো কর্মগুলোই আল্লাহর দিকে সম্বোধন করা হয়। আর এখানে নৌকাটি নষ্ট করা স্পষ্টত কোন ভালো কর্ম নয়। তাই আল্লাহর সম্মানার্থে কর্মটিকে তিনি নিজের দিকে নিসবত-সম্বোধন করেন। ফলে তিনি বলেন, فَأَرَدتُّ أَنۡ أَعِيبَهَا “আমি নৌকাটিকে ত্রুটিযুক্ত করতে চেয়েছি”এ খারাপ কর্মটির উদ্দেশ্য হলো, নৌকাটি নিরাপদ থাকা যাতে যালিম বাদশা জোর করে নিয়ে না যায়। কারণ, অত্যাচারী বাদশা সব ভালো, দোষ-ত্রুটি মুক্ত ও নিরাপদ নৌকাগুলো জোর করে নিয়ে যায়। তাই খিযির আলাইহিস সালাম যালিম বাদশার হাত থেকে বাঁচানোর জন্য ভালো নৌকাটিকে ত্রুটিযুক্ত করে দেয়ার ইচ্ছা করলেন। যখন সে দেখতে পাবে নৌকাটি ত্রুটিযুক্ত ও ফাঁটা তখন যালিম বাদশার পাকড়াও, যুল্‌ম ও অনিষ্ঠতা থেকে নৌকাটি থেকে বেচে যাবে। যেহেতু বাহ্যিক বিষয়টি আল্লাহর সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ নয় এবং তার ক্ষেত্রে প্রযোজ্য নয় তাই তিনি কর্মটিকে তার নিজের দিকেই নিসবত-সম্বোধন করেন এবং বলেন, فَأَرَدتُّ أَنۡ أَعِيبَهَا “আমি নৌকাটিকে ত্রুটিযুক্ত করতে চেয়েছি” আর মু’মিন মাতা-পিতার উল্লেখের সময় বলেন, فَأَرَدۡنَآ أَن يُبۡدِلَهُمَا رَبُّهُمَا ‘‘তাই আমি চাইলাম, তাদের রব তাদেরকে তার পরিবর্তে এমন সন্তান দান করবেন, যে হবে তার চেয়ে পবিত্রতায় উত্তম এবং দয়ামায়ায় অধিক ঘনিষ্ঠ।” কর্মটি ভালো হওয়ার কারণে তিনি তার নিজের দিকে সম্বোধন করেন। কারণ, তিনি এ ব্যাপারে আল্লাহর পক্ষ থেকে আদিষ্ট। বহুবচন শব্দ ব্যবহার করার কারণ, তিনি নবী। আর নবীরা সাধারণ মানুষ নয় তারা মহান তাই তাদের ক্ষেত্রে বহুবচন ব্যবহার করাই হলো শ্রেয়। এ ছাড়াও কর্মটি আল্লাহর আদেশে এবং তার দিক-নির্দেশনায় হয়েছে। ফলে বহুবচন ব্যবহার করে আল্লাহর দিকে কর্মের সম্বোধন করাটাই ছিল উত্তম। এ ছাড়াও কর্মটি ভালো, কল্যাণকর ও উপকারী। এ ধরনের কর্মের সম্বোধন আল্লাহর দিকেই হয়ে থাকে। ইয়াতীম বালক দু’টির বিষয়টিতে ছিল তাদের সংশোধন, উপকার ও মহা কল্যাণ। এ কারণেই তিনি বলেন,  فَأَرَادَ رَبُّكَ“তাই তোমার রব চাইলেন যে,” এখানে কল্যাণকে আল্লাহ তা‘আলা তার নিজের দিকে সম্বোধন করেছেন। এটি সূরা আল-জ্বীনের মধ্যে আল্লাহর অপর একটি বাণীর মতো। যাতে আল্লাহ তা‘আলা বলেন,﴿وَأَنَّا لَا نَدۡرِيٓ أَشَرٌّ أُرِيدَ بِمَن فِي ٱلۡأَرۡضِ أَمۡ أَرَادَ بِهِمۡ رَبُّهُمۡ رَشَدٗا ١٠﴾ [الجن: ١٠] ‘‘আর নিশ্চয় আমরা জানি না, জমিনে যারা রয়েছে তাদের জন্য অকল্যাণ চাওয়া হয়েছে, নাকি তাদের রব তাদের ব্যাপারে মঙ্গল চেয়েছেন।” [সূরা আল-জীন, আয়াত: ১0] এ আয়াতে খারাপ কর্মটিকে আল্লাহর দিকে সম্বোধন করা হয়নি। কিন্তু যখন হিদায়াতের আলোচনা আসল, তারা বলল,  أَمۡ أَرَادَ بِهِمۡ رَبُّهُمۡ رَشَدٗا “নাকি তাদের রব তাদের ব্যাপারে মঙ্গল চেয়েছেন।” হিদায়াত কল্যাণকর হওয়ার কারণে হিদায়েকে তারা আল্লাহর দিকে সম্বোধন করলেন। খারাপ কর্ম তার প্রতি সম্বোধন করা যাবে না। যেমন, বিশুদ্ধ হাদীসে বর্ণিত রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন, والشر ليس إليك “খারাপ কর্ম তোমার দিকে নয়।” এটি একটি ভালো শিষ্টাচার এবং মু’মিন জ্বীনদের আদব। আর খিযির আলাইহিস সালাম খারাপ কর্ম বিষয়ের সম্বোধনের শিষ্টাচার থেকে তিনি বলেন, فَأَرَدتُّ أَنۡ أَعِيبَهَا  “আমি নৌকাটিকে ত্রুটিযুক্ত করতে চেয়েছি” আর দুই ইয়াতীমের বিষয়ে বলেন, فَأَرَادَ رَبُّكَ “তাই তোমার রব চাইলেন” এ গুলো সবই আল্লাহ সুবহানাহুর সাথে যথাযথ সম্মান প্রদর্শন। আল্লাহ তা‘আলাই তাওফীক দাতা।

শাইখ আব্দুল আযীয বিন বায রহ

[1]. তাঁর আশংকা নিছক ধারণা ভিত্তিক ছিল না, বরং আল্লাহর পক্ষ থেকে তিনি নিশ্চিত জানতে পেরেছিলেন।

ব্লগ সাইটটি যদি আপনার মনের কোথাও একটুও যায়গা করে নেয় বা ভালো লেগে থাকে। তাহলে আপনিও ব্লগের কার্যক্রম কে সামনের দিকে এগিয়ে নিতে আপনার লেখণী পাঠাতে পারেন।আপনার লেখনী পাঠিয়ে আমাদের ফেচবুক পেজের ম্যাসেঞ্জারে গিয়ে দয়াকরে নক করুন।
নিচে মন্তব্যের ঘরে আপনাদের মতামত জানান। ভালো লাগবে আপনাদের অভিপ্রায়গুলো জানতে পারলে। আর লেখা সম্পর্কিত কোন জিজ্ঞাসার উত্তর পেতে অবশ্যই “ওয়ার্ডপ্রেস থেকে কমেন্ট করুন”।

আপনার মন্তব্য লিখুন

দয়া করে আপনার মন্তব্য লিখুন !
দয়া করে এখানে আপনার নাম লিখুন